Ultra Protagonist's World

প্রারম্ভিক

ডায়েরীর শেষ দিক থেকে ১৫

 মাংসপেশি অনেকটা বাঁকিয়ে হাসি – কান্না ,
টেলিফোনে লম্বা ঝগড়া ,
চায়ের টেবিলে মিটে যাওয়া বা শুরু হওয়া মন -কষাকষি –
যা এই কিছুদিন আগে অবধিও অপরিহার্য বলে মনে হতো ,
এখন বাড়তি মেদ বলে মনে হয় ।
জীবন এখন লাইফ হয়ে গেছে ,
সুয়েভ বিল্ডিং এর মতো অনেকটা ,
দীর্ঘ-ই টার উপস্থিতিও বেশ বাড়াবাড়িই ।
আমাদের মধ্যেকার ফাঁকফোঁকর বোজাতে চুন – সুরকির যত্ন
অতো বেশি আর লাগে না ।
কাপ – ডিশ – গেলাস ,
উঁকি মারার জন্যে প্রশস্ত কিছু জানালা
অনেক উঁচু থেকে যাতে জীবন কে দেখা যায় মাঝে মাঝে ;
আর উঁচুতে ওঠার জন্যে সিঁড়ি আর কোমরের জোরের আগেও
কোঁচড়ের জোর ।
সাইজ জিরো তে মাংসল জায়গা বলতে এটুকুই ।

Advertisements

About Anand Sehgal

A graduate researcher, A writer, A poet, A singer, A composer,An actor..............An artist by heart

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

Information

This entry was posted on July 29, 2014 by in কবিতা, সমকাল.
%d bloggers like this: